Wednesday, May 18, 2016

নাজেহাল সিপিএম হাতিয়ার করেছে সেই সোস্যাল মিডিয়াকেই | বর্তমান


বিএনএ, আসানসোল: এতদিন সিপিএমের কাছে যা ছিল লড়াইয়ের টনিক এখন সেটাই তাদের গলায় কাঁটা হয়ে বিঁধছে। সোস্যাল মিডিয়ায় নিজেদের পছন্দের সমীক্ষার ফলকে সামনে রেখে কর্মীদের চাঙা রাখার চেষ্টা করেছিল বাম শিবির। এমনকি ক্ষমতায় আসছে ধরে নিয়ে জোট সরকারের মন্ত্রী তালিকাও তৈরি হয়ে গিয়েছিল সোস্যাল মিডিয়ায়। কিন্তু সোমবার দেশের নামী সংস্থাগুলি বুথ ফেরত সমীক্ষা প্রকাশ করার পর বেসুরে গাইতে শুরু করেছেন বাম নেতারা।
তাঁরা এখন দাবি করতে শুরু করেছেন, ওই সমীক্ষার কোনও মূল্য নেই। ১৯ তারিখ ফলাফল বেরনোর পর তাঁরা চমকে দেবেন। কর্মীদের ভেঙে না পড়ার জন্য তাঁরা পরামর্শ দিচ্ছেন।
দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রথম দিকে বাম নেতারা খুব বেশি সোস্যাল মিডিয়ায় হাত পাকায়নি। কিন্তু হাওয়া বুঝে গত লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকেই তারা সোস্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করতে থাকে। বিধানসভা নির্বাচনে কর্মীদের উজ্জীবিত করতে বিভিন্ন সংস্থার নাম করে তারা ভোটের আগে ও পরে সমীক্ষা রিপোর্ট প্রকাশ করতে থাকে। রাজনৈতিক মহলের মতে, তারা পছন্দের সমীক্ষা রিপোর্টকে সামনে রেখে নিষ্ক্রিয় কর্মীদেরও ময়দানে নামাতে চেয়েছিল। কিন্তু নামী সংস্থাগুলির রিপোর্ট প্রকাশ করার পর তারা এখন তা মিথ্যা প্রমাণ করার মরিয়া প্রয়াস শুরু করেছে। সিপিএমের রাজ্য কমিটির সদস্য গৌরাঙ্গ চট্টোপাধ্যায় ওয়ালে লিখেছেন, সমীক্ষা টমিক্ষা কোন দিকে উড়ে যাবে। ১৯ মে মমতা সরকারের পতন হবেই হবে। বাংলা হবে লাল।
দুর্গাপুরের সিপিএমের জোনাল সম্পাদক পঙ্কজ রায় সরকার লিখেছেন, ১৯ মে চমক অপেক্ষা করছে তৃণমূলের জন্য। তাঁর প্রশ্ন, কোন সংস্থা গিয়েছিল আপনার কাছে সমীক্ষার জন্য? সিপিএমের একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে এক সিটু নেতা লিখেছেন, সমীক্ষা রিপোর্ট সামনে আসার পর বাজারহাটে শ্মশানের নীরবতা দেখা যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশন ভোট প্রচারে নানা অভিনব কৌশল নিয়েছে। এবার তারা আরেকটা নতুন জিনিস করুক। কারা সমীক্ষা রিপোর্টের উত্তর দিয়েছিল তাদের ফটো সংগ্রহ করে পুরস্কার দেওয়া হোক। এভাবে অনেক সিপিএম নেতা এখন সমীক্ষার বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিতে শুরু করেছে। আগে যে সব বুথ ফেরত সমীক্ষা ব্যর্থ হয়েছিল সেগুলি তারা তুলে ধরে কর্মীদের আশা না ছাড়ার পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে। প্রসঙ্গত, এবার নির্বাচনের আগে সিপিএম নেতারা নিজেরা ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খোলার পাশাপাশি হোয়াটস অ্যাপে গ্রুপ তৈরি করে ভোট প্রচার শুরু করে। তৃণমূল নেত্রীর নানা কার্টুনও তারা ছড়িয়ে দেয়। তারা সবচেয়ে চমক দেয় নিজেদের মনগড়া সমীক্ষা রিপোর্ট তৈরি করে। এখন সেটাই তাদের কাছে ব্যুমেরাং হয়ে যেতে বসেছে। তবে শুধু সিপিএমই নয়, তৃণমূলের অনুগামীরাও নির্বাচনের আগে থেকে তাদের মনের মতো সমীক্ষা রিপোর্ট সোস্যাল সাইটে আপলোড করতে থাকে। যদিও তাদের হতাশ করেনি নামী সংস্থাগুলির বুথ ফেরত সমীক্ষা।

No comments:

Post a Comment