Wednesday, May 18, 2016

ফলপ্রকাশের পর জোটকর্মীদের বাঁচাতে ভাবনা সিপিএমের | এবেলা

বিধানসভা নির্বাচনের ফলঘোষণার পর ‘সন্ত্রাস’ হলে সেক্ষেত্রে জোটকর্মীদের বাঁচাতে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা নিচ্ছে সিপিএম। আগে থেকেই তাই সিপিএম নেতৃত্বের চিন্তাভাবনায় রয়েছে, আহতদের জন্য চিকিৎসা, ‘মিথ্যা’ মামলায় জড়িয়ে দেওয়া কর্মীদের জন্য আইনি ব্যবস্থা এবং ঘরছাড়াদের জন্য আশ্রয় সুনিশ্চিত করার ব্যবস্থা। 
আগামী ২১ মে সিপিএমের রাজ্য কমিটির বৈঠক হওয়ার কথা। এক সিপিএম নেতা জানিয়েছেন, ওই বৈঠকে চিকিৎসক, আইনজীবী এবং আশ্রয়ের ব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা হতে পারে। তাঁর কথায়, ‘‘বাম-কংগ্রেস জোট হারুক বা জিতুক, তৃণমূল জোটকর্মীদের উপর আক্রমণ করবে বলেই আমাদের আশঙ্কা। এই প্রেক্ষিতে আমাদের কী করণীয় হবে, তা নিয়ে এখন থেকেই ভাবনাচিন্তা শুরু হয়েছে।’’ ২০১১ সালে বিধানসভা নির্বাচনে পরাজয়ের পর সিপিএম শীর্ষনেতৃত্বের বিরুদ্ধে দলের নিচুতলার কর্মীদের মূল অভিযোগ ছিল, আক্রান্ত কর্মী-সমর্থকদের পাশে থাকেন না প্রথমসারির নেতারা। সেই অভিযোগের পুনরাবৃত্তি চায় না সিপিএম।
সিপিএম সূত্রের খবর, ফল ঘোষণার পর জোটকর্মীদের উপর হামলা হলে, কী করণীয় তা নিয়ে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা তৈরি করেছেন দলের রাজ্য কমিটির এক সদস্য। তিনি তাঁর জেলার সম্পাদকমণ্ডলীর কাছে সেই পরিকল্পনা প্রস্তাব আকারে জমাও দিয়েছেন। এক সিপিএম নেতা বলেন, ‘‘সেই পরিকল্পনা কীভাবে কার্যকর হবে তা নিয়ে আলোচনা হতে পারে রাজ্য কমিটির বৈঠকে।’’
রাজ্য কমিটির ওই সদস্য কী প্রস্তাব দিয়েছেন?
সিপিএম সূত্রের খবর, জোটকর্মীরা আক্রান্ত হলে তাঁদের দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। তাই জেলায় জেলায় মেডিক্যাল টিম তৈরি করতে হবে। মজুত রাখতে হবে পর্যাপ্ত ওষুধও। বামেদের সমর্থক চিকিৎসকদের নিয়ে দল গঠন করতে হবে। আক্রমণের খবর পাওয়ামাত্রই ওই মেডিক্যাল টিমের সদস্যেরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে যাবেন। 
আক্রান্ত কর্মীদের হয়ে আদালতে আইনি লড়াইয়ের জন্য আইনজীবীদের একটি দল গঠনের প্রস্তাব দিয়েছেন ওই নেতা। গত বিধানসভা ভোটের পর বিভিন্ন জেলায় ‘মিথ্যা’ মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছিল বহু বাম কর্মী-সমর্থককে। বহু কর্মী এখনও জেলে। তাঁদের জামিন নিশ্চিত করা এবং ভবিষ্যতে দলের কর্মীদের গ্রেফতার করা হলে তাঁদের হয়ে আইনি লড়াই লড়বেন ওই আইনজীবীরা। এক সিপিএম নেতা বলেন, ‘‘এবার ভোটের পর লক্ষ্য করা গিয়েছে, শুধু বাম বা কংগ্রেস কর্মীরাই তৃণমূলের আক্রমণের শিকার হননি। বহু ভোটারও আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁদের জন্য আইনি লড়াই করতে হবে।’’
তৃণমূলের হামলায় জোটকর্মীরা ঘরছাড়া হলে তাঁদের কোথায় আশ্রয় দেওয়া হবে, সে বিষয়ে আগাম পরিকল্পনা করতে চান সিপিএম নেতৃত্ব। এক সিপিএম নেতার কথায়, ‘‘আমাদের আশঙ্কা, যেখানে আমরা জিতব, সেখানেই আক্রমণের মাত্রা বেশি হবে।’’
তবে সিপিএম নেতৃত্বের বড় অংশের ধারণা, সরকার গড়তে পারবে না তৃণমূল। শেষপর্যন্ত তৃণমূল যদি সরকার গড়েও সেক্ষেত্রে তাদের সঙ্গে বিরোধীদের আসনের ফারাক খুব একটা বেশি থাকবে না। তবুও আক্রমণ হবে ধরে নিয়েই দলের প্রতিটি স্তরের নেতাদের সতর্ক এবং প্রস্তুত থাকার বার্তা দিচ্ছে আলিমুদ্দিন। ওই সিপিএম নেতা বলেন, ‘‘২০১১ সালের জড়তা কর্মীরা কাটিয়ে উঠেছেন। এখন আক্রমণ হলে প্রতিরোধ হবে।’


No comments:

Post a Comment